Home / সারাদেশ / টয় ব্যবহার করেছিল দিহান!!

টয় ব্যবহার করেছিল দিহান!!

স’ম্প্র’তি চা’ঞ্চল্যকর ঘ’টনা রা’জধানীর ক’লাবা’গানে আনুশকা মা’স্টার মাই’ন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের এই ছা’ত্রীর রেক্টাম ও যৌ”না”ঙ্গে মি’লেছে অস্বাভাবিক ‘ফ”রেন বডি’র আ’ঘাত। কি ছিল সেই ‘ফরেন বডি’? সেই র’হস্যকে কেন্দ্র করে চলছে গভীর অ’নুসন্ধান।

আনুশকার র’হস্য উদঘাটনে কাজ করছে সংশ্লিষ্ট এ’কাধিক প্র’তিষ্ঠান। ইতোমধ্যেই মে’ডিকেল ফরেনসিক টিম ম’য়নাত’দন্তের ক’র্মক’া’ণ্ড চা’লাচ্ছে। বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে কাজ করে যা’চ্ছে সিআ’ইডিস’হ আ’ই’ন প্রয়োগকারী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। এরইমধ্য থেকে ত’দন্ত সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্র প্রত্যক্ষ আলামত ও চিহ্নের ভিত্তিতে ধা’রণা করছে যে- দেশীয় আকৃতির পু”রু”ষা”ঙ্গ নয়, বরং ফরেন বা বিদেশি বড় পু’রু’ষাঙ্গ আকৃতির কিছু একটা ভিক্টিমের রেক্টামে পুশ করানো হয়েছে। যে কারণে যৌ’’নাঙ্গ ও রেক্টাম ফেটে গিয়ে অ’তিরিক্ত র’ক্তক্ষরণ হয়।

হঠাৎ দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে’র দিকে দিহা’ন আমাকে ফোন দিয়ে কাঁদো কাঁদো স্বরে ক’থা ব’লে। জীবনে ওকে আমি কখনও কা’ন্না করতে দেখিনি। ফোন দিয়ে ব’লে, ‘ভাইয়া বাসায় বান্ধবীকে নিয়ে এসেছিলাম। অ’জ্ঞান হয়ে গেছে। হাসপাতা’লে নিয়ে যাচ্ছি। তুমি আসো, তুমি ছাড়া আমাকে কেউ বাঁ’চাতে পারবে না।’

দিহা’নের ভাই আরও ব’লেন, আমি ভয় পেয়ে যাই। তখনই আমা’র কর্মস্থল থেকে বের হয়ে এসেছি। দিহা’ন বারবার ফোন দিচ্ছে ‘ভাইয়া তুমি দ্রু’ত আসো।’ প’রে দুপুর ১টা ৫০-এর দিকে আবার ফোন করে। তখন ব’লে, ‘ভাইয়া ও তো মা’রা গেছে’। তখন আমি বলি, ‘কে মা’রা গেল ঠিকঠাক মতো বলো’। দিহা’ন ব’লে, ‘তুমি হাসপাতা’লে চ’লে আসো দ্রু’ত।’

রা’জধানীর ক’লাবাগানের ড’লফিন গলি এ’লাকায় ধানমন্ডির মা’স্টারমাই’ন্ড স্কুলের এক শি’ক্ষার্থীকে প’র অ’ভিযোগ পাওয়া গেছে তার বয়ফ্রেন্ড ফারদিন ইফতেখার দিহা’ন ও তিন স’হপাঠীর বি’রুদ্ধে।

Check Also

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে এপ্রিলে সিদ্ধান্ত

দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে এখনই কোন সিদ্ধান্তে আসছে না সরকার। ফেব্রুয়ারি মাস পর্যবেক্ষণ করে …