Home / এক্সক্লুসিভ / জেনে নিন মাত্র ৯ সেকেণ্ডেই ডিমের খোসা ছাড়ানোর দারুন কৌশল!

জেনে নিন মাত্র ৯ সেকেণ্ডেই ডিমের খোসা ছাড়ানোর দারুন কৌশল!

ছোট থেকে বড় সবাই ডিম খেতে পছন্দ করেন। তবে সিদ্ধ ডিমের খোসা ছাড়াতে গৃহিণী থেকে ব্যচেলর সবাই নাজেহাল হয়ে থাকেন। কেউ ডিমের খোসা ছাড়াতে গিয়ে প্রায় অর্ধেক ডিমের গায়ের অংশই খুবলে ফে’লে ন! আবার কেউ হয়তো এত ধীরে সু’স্থে সেই খোসা ছাড়ান যে পাঁচ দশ মিনিট পার হয়ে যায়!

তবে একটি সহজ উপায়ে মাত্র নয় সেকেণ্ডেই কিন্তু আপনি ডিমের খোসা ছাড়াতে পারেন। কীভাবে একটি সিদ্ধ ডিমের খোসা খুব নিমেষে ছাড়ানো যায় জে’নে নিন-

একটি গ্লাস নিন। গ্লাসের ভি’তরে সিদ্ধ ডিম নিয়ে তাতে ঠাণ্ডা পানি ভরে নিন। তারপরেই ওই গ্লাস থেকে ডিমটি বের করার আগে কয়েক সেকেন্ড গ্লাসটি ভালো করে ঝাঁকিয়ে নিন। এরপর ডিমটি বের করে আঙুলের চা’প দিলেই সেটি ডিম থেকে আলগা হয়ে বেরিয়ে আসবে।

নাকের পলিপাস থেকে মুক্তি মিলবে তিন উপায়ে

নাকের এই স’মস্যাটি নিয়ে অনেকেই ভুগে থাকেন। দীর্ঘদিন ধ’রে সর্দি, কাশি বা এ’লার্জির কারণে বিনা চি’কিৎ’সায় থাক’লে পলিপাস হতে পারে। পলিপাস মূলত দুই ধ’রনের হয়ে থাকে- ইটময়রেল ও মেক্সিলারি এন্ট্রোকনাল পলিপ। প্রথমটি নাকের প’রের সেতু হিসেবে কাজ করে। অনেকগুলো কোষের স’মন্বয়ে তৈরি একটি ঝিল্লি। যেহেতু কোষের

দেয়ালগুলো পাতলা থাকে তাই এগুলোতে পানি জমে ফুলে যায়। যার ফলে নাক প্রা’য় ব’ন্ধ হয়ে যায় এবং নিঃশ্বা’স নিতে ক’ষ্ট হয়। এই পলিপটি হওয়ার জ’ন্য দায়ী মূলত এ’লার্জি। অন্যদিকে, দ্বি’তীয় পলিপটি অ্যালার্জির মাত্রা’তিরিক্ত সংক্র’মণ ের ফলে হয়ে থাকে। এনট্রোকনাল পলিপ সা’ধা’রণত নাকের পেছনের দিকে এরপ’র গ’লায় গিয়ে বাড়তে থাকে। এর ফলে পুরো নাক ব’ন্ধ

হয়ে যায়। এই পলিপগুলো বৃ’দ্ধি পাওয়ায় একস’ময় অ’স্ত্রোপ’চার ক’রতে হয়। তবে প্রা’থমিকভাবে নাকের পলিপাস শনা’ক্ত হলে ঘ’রোয়া তিন উপায়েই তার স’মাধান ক’রতে পারেন। জে’নে নিন কীভাবে- হলুদ: হলদে রঙা এই মশলাটিই পারে পলিপাসের স’মস্যার স’মাধান ঘ’টাতে। কারণ এতে রয়েছে অ্যান্টি- ই’নফ্লেমেটরি উপাদানস’মূহ। যা শা’রীরিক বিভিন্ন সংক্র’মণ থেকে বাঁ’চায়। এক গবেষণার তথ্যমতে

হলুদ এ’লার্জির স’মস্যা স’মাধান ক’রতে পারে। এজ’ন্য প্র’তিদিনের খাবারে এক থেকে দুই চা চামচ হলুদের গুঁড়া মিশিয়ে খান। এর পাশাপাশি হলুদের চা ও পান ক’রতে পারেন। এছা’ড়াও হলুদের গুঁড়া পানিতে কিছুক্ষণ ফুটিয়ে অতঃপ’র মধু দিয়ে পান করুন। রসুন: এই ছোট্ট উপাদানে রয়েছে অনেক ওষুধি গুণ। গবেষণায় দেখা গেছে, পাকস্থলীর কা’র্যক্ষ’মতা বাড়ানোর পাশাপাশি অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবেও কাজ করে রসুন। যে কো’নো ধ’রনের প্রদাহ কমাতেও সাহায্য করে এটি। নাকের পলিপাসের স’মস্যায় এটি বেশ কা’র্যকরী এক উপাদান। রান্নায় রসুনব্যবহারের পাশাপাশি প্র’তিদিন কাঁচা খাওয়ার অ’ভ্যাস গড়ুন। রসুনের গুঁড়া হালকা গরম পানিতে

মিশিয়েও প্র’তিদিন পান ক’রতে পারেন। আ’দা: রসুনের মতো আ’দাতেও উপকারী স’ব উপাদান রয়েছে। ‘এসএ ২০১৩’ এর গবেষণায় জা’না যায়, আ’দায় রয়েছে অ্যান্টিমাক্রোবিয়াল ও সংক্র’মণ বি’রো’ধী উপ’দানস’মূহ। নাকের পলিপাস স’মস্যার স’মাধানে রান্নায় নিয়’মিত আ’দার গুঁড়া ব্যবহার করুন। এছা’ড়াও আ’দার চা পান করুন প্র’তিদিন।

Check Also

৪ টি উপায়ে না’রীকে উ’ত্তে’জিত করা যায়

বি’ষয়টি অনেকের কাছেই অপ্রয়োজনীয় মনে হতে পারে। মনে হতে পারে যে এই ধরনের প্রশ্নের আসলে …