Home / Life Stile / কোমায় গিয়েও সুস্থ সন্তান জ’ন্ম দিলেন করোনা আ’ক্রান্ত না’রী!

কোমায় গিয়েও সুস্থ সন্তান জ’ন্ম দিলেন করোনা আ’ক্রান্ত না’রী!

করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়ে স্বাস্থ্যের অবস্থা ভয়াবহ। ফুসফুস তেমন একটা কাজ করছিল না। অনেক দিন ধরে ছিলেন কোমায়। এমন অবস্থায়ও সন্তান জন্ম দিয়েছেন দিয়ানা অ্যাঙ্গোলা নামে কলম্বিয়ার এক নারী। জীবন-মৃ’ত্যুর সন্ধিক্ষণে থেকে এক ছেলে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন ৩৬ বছর বয়সী অ্যাঙ্গোলা। এই ঘটনায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে ।

১৪ সপ্তাহ আগেই পৃথিবীর আলোতে নিয়ে আসা হয় জেফারসনকে। মা করোনায় আ’ক্রান্ত হলেও এই নবজাতকের শরীরে করোনার সংক্রমণ নেই বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। পরিস্থিতি ‘অনেক সংকটজনক’ ছিল বলে জানিয়েছেন কলম্বিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের ক্যালি শহরের ভেরসালেস ক্লিনিকের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পাওলা ভেলাসকেস।

অ্যাঙ্গোলা তীব্র জ্বর নিয়ে গত ১৫ মে হাসপাতালে ভর্তি হন। তার আরও একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার তিন দিনের মাথায় চলে যান কোমাতে। নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন তিনি। শ্বাস প্রশ্বাস নিতে খুব কষ্ট হতো। অপরিপক্ব থাকা অবস্থায় জন্ম নেওয়ায় জেফারসনেরও শ্বাস নিতে সমস্যা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তাকে টিকিয়ে রাখতে অনেক লড়াই করতে হয়েছে।

শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ এডউইন ওলিভো বলেন, আমাদেরকে পুরো প্রক্রিয়াটা একজন গুরুতর রোগীর চিকিৎসা করার মতো অনুসরণ করতে হয়েছে। তিনি জানান, জেফারসনকে এখনো ইনকিউবিটরে রাখা হলেও দ্রুতই তার ওজন বাড়ছে। আরও সহজে শ্বাস নিতে পারছে।

চিকিৎসক পাওলা ভেলাসকেস বললেন, ২৪ সপ্তাহ হলেই ভালো ওজনের কোনো মানব শিশু বাঁচিয়ে রাখা যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে অনেক টেকনোলোজি লাগবে, সেই সঙ্গে স্নায়বিক বিকাশ এবং ফুসফুসের প্রভাব সংক্রান্ত কাজগুলো ভালো করতে হবে। এদিকে, সুখবর হলো অ্যাঙ্গোলা এরই মধ্যে করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। অ্যাঙ্গোলার সুস্থতা দেখে সস্তির নিশ্বাস পেয়েছে হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

স্ত্রীকে খুশি করার দারুন এবং সহজ কিছু উপায় জেনে নিন সারাজীবন কাজে লাগবে…..

স্ত্রী’কে খুশি করার দারুন- বিবাহিত জীবনে স্ত্রী’কে খুশি করা অনেক দরকারী একটি জিনিষ। বস্তুবাদী জীবনে আম’রা মনে করি অর্থই সকল সুখের মূল, কিন্তু আসলে ব্যাপারটা তা না। আম’রা নিজেরাই অর্থ কে নিজেদের সুখের মূল উপাদান বানিয়ে ফেলেছি। জেনে নিন, প্রে’মিকা বা স্ত্রী’কে খুশি করার দারুন এবং সহ’জ কিছু উপায় !

আম’রা যখনই অর্থকে সব কিছুর উপরে প্রাধান্য দিব তখনই আমাদের কাছের মানুষদের সাথে আমাদের বন্ধন হাল্কা হতে শুরু করে। তাদের অনুভুতির মুল্য তখন আম’রা দিতে ভুলে যাই। বিশেষ করে আমাদের ঘরের পুরুষ দের মনে রাখতে হবে শুধু অর্থ উপার্জনই তাদের একমাত্র কাজ নয়। সংসার সুখি করতে মেয়েদের পাশাপাশি পুরুষদেরও অনেক কিছু করনিও থাকে।

অর্থ এবং বস্তুবাদি জীবনকে দূরে রেখে যে সকল কাজের মাধ্যমে স্ত্রী’কে খুশি করা যায় সেগুলো করার চেষ্টা আমাদের করতে হবে। মনে রাখাটা জরুরি স্ত্রী’কে খুশি রাখা মানে পুরো সংসার টাকে সুন্দর এবং সুখী রাখা।

যে সকল কাজের মাধ্যমে সহ’জেই স্ত্রী’কে খুশি করা যায় সেগুলো হলঃটিম হিসেবে কাজ করাঃআমাদের সমাজে কিছু নিয়ম অনেককাল ধরে চলে আসছে, যেমন পুরুষেরা ঘরের কাজ করবে না। ঘরের কাজ এবং বাচ্চা পালা শুধুমাত্র মহিলাদের দায়িত্ব।

এমন ধারনা একদমই ভুল। সুখি সংসার এবং দাম্পত্য জীবনের জন্য স্বামী স্ত্রী’ দুজনাকে টীম হিসেবে কাজ করতে হবে। সারাদিন অফিস করে এসে ঘরের কাজে সাহায্য করতে মন নাও চাইতে পারে তবে মনে রাখাটা জরুরি। আপনি বাইরে পরিশ্রম করলেও সারাদিন আপনার স্ত্রী’ও কিন্তু ঘরে পরিশ্রম করেছেন।

সে ক্ষেত্রে রাতের কিছু কাজ ভাগ করে নেওয়াটা খুব কঠিন এবং পরিশ্রমের কিছু হবে না। যেমনঃ বিছানা গোছানো, মশারি টাঙ্গানো, থালাবাসন যায়গা মত গুছিয়ে রাখা, বাচ্চাদের পড়া একটু দেখিয়ে দেওয়া, বোতলে পানি ভরা ইত্যাদি কাজে স্বামীরা খুব অল্প পরিশ্রম দিয়েই সাহায্য করতে পারেন।

স্ত্রী’র সমস্যার কথাগুলো মন দিয়ে শুনুন তবে সরাসরি সমাধান দিয়ে দিবেন নাঃগবেষনায় দেখা গেছে কোন পারিবারিক বা সাংসারিক সমস্যায় পুরুষদের চেয়ে মেয়েরা অনেক বুঝে সমাধানে আস্তে পারে। কিন্তু মেয়েদের চিন্তা ভাবনাগুলো তারা তাদের পার্টনারদের সাথে আলোচনা করে নিতেই বেশি পছন্দ করে। আজকাল ফেসবুকের যুগে স্বামীরা স্ত্রী’দের কথা মন দিয়ে শুনবে এমন আশা করাটাও বোকামি।

তবে প্রতিটা স্বামীর উচিৎ সাংসারিক শান্তি রক্ষার্থে স্ত্রী’র সমস্যার কথাগুলো মন দিয়ে শোনা এবং তার মতামত প্রকাশ করা। তবে নিজের মত প্রকাশের সময় হুট করে একটা কিছু বলে না বসে বুঝিয়ে বললে বিষয়টা ভালো হয়। কারন হুটহাট মতামত দিলে স্ত্রী’দের মনে হতে পারে বিষয়টি না বুঝেই বা সেটা নিয়ে চিন্তা না করেই আপনি আপনার মতামত প্রকাশ করলেন।

নরম ভাবে স্ত্রী’দের সাথে কথা বলুনস্ত্রী’দের মুখে হাসি ফোটানো খুব কঠিন কিছু না। নরম কন্ঠে তাদের সাথে কথা বলুন। তাদের কে জানান আপনি তার সাথে সংসার করে কতটা সুখি। হাজার টাকা দিয়েও সেই হাসিটা আপনি দেখতে পারবেন না যা সেই মুহুর্তে আপনি দেখবেন।

স্ত্রী’র জীবনের লক্ষ্য স’ম্পর্কে জানুনঃ বর্তমান যুগে প্রতিটা মেয়েরই কোন না কোন স্বপ্ন থাকে। বিয়ের পর অর্ধের এর চেয়েও বেশি মেয়েদের স্বপ্ন ভেঙ্গে যায় শুধুমাত্র স্বামী এবং শশুরবাড়ির সাপোর্ট না থাকায়। আপনি শুরুতেই জেনে নিন আপনার স্ত্রী’র জীবনের লক্ষ্য কী’, তাকে তার লক্ষ্যে পৌছানোর ব্যাপারে আপনি কিভাবে সাহায্য করতে পারেন সেটা ভাবুন।

অনেকে মেয়েই তার পড়াশোনা বিয়ের পরেও চালিয়ে যেতে চায় কিন্তু সাংসারিক কাজের চাপে সেটা পেরে উঠে না, আপনি প্রতিদিন তাকে কিছু সময় ঠিক করে দিন পড়ার জন্য এবং সেই সময় টুকু তে তাকে যেন অন্য কোন কাজ করতে না হয় সেদিকে নজর রাখু’ন।

অনেকে শুধুমাত্র ভাল বউ এবং মা হতে চায়। তাদের কেও আপনি সাহায্য করতে পারে, সাংসারিক কাজ গুলো গুছিয়ে উঠার জন্য কিভাবে কী’ করা যায় আলাপ আলোচনা করুন, ভালো ভালো টিপস এবং সহ’জে কাজ করা যায় এমন জিনিষগুলো হাতের কাছে এনে দিন। তাকে এক্সপার্ট হওয়ার জন্য সাহায্য করুন।

প্রশংসা করুনঃ নারীরা ঘরের কাজ করবে এখানে আবার প্রশংসার কী’ আছে? কথাটা একদমই ভুল। নারীরা ঘরে হোক বা বাইরে অনেক পরিশ্রম করে থাকে প্রতি নিয়ত যেটার বিনিময়ে তারা সামান্য এটেনশানও পায় না। অথচ তাদের কাজের প্রতি আগ্রহ তৈরির জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তাদের জীবন সঙ্গীর প্রশংসা।

জি হ্যা, সামান্য প্রশংসাই তাদের কর্ম স্পৃহা বাড়িয়ে তুলতে পারে অনেকাংশে। বাড়িতে ঢুকে সাফ করা ঘর বাড়ি দেখে তার কাজের প্রশংসা করুন। খাবার যদি খেতে খুব খা’রাপ না হয় তবে তাকে বলুন খাবার খেয়ে আপনার মজা লেগেছে। দেখবেন এরপর সে আসলেই মজাদার কিছু আপনার জন্য রান্নার চেষ্টা করছে।

একই ভাবে দাম্পত্য জীবনে স্ত্রী’কে খুশি করতে তার সৌন্দর্যের প্রশংসাও করুন। সে যখনি নতুন কোন জামা বা সুন্দর কোন জামা পরে বা সেজে গুজে থাকে তাকে সুন্দর লাগছে বলুন। আপনার এই একটি মাত্র কথা আপনার স্ত্রী’র আত্ববিশ্বা’স বাড়িয়ে দিবে বহুগুন।

স্ত্রী’কে বলুন আপনি তাকে ভালবাসেনঃ এই একটি কথার মাধ্যমে আপনি আপনার স্ত্রী’কে অনেক অনেক বেশি খুশি করতে পারেন। মেয়েরা মুখে প্রশংশা বেশি পছন্দ করে। তাকে বলুন আপনি তাকে কেন এত ভালোবাসেন। আপনার জীবনে তার অবস্থান তার মুল্য তাকে স্পষ্ট করে বুঝিয়ে বলুন।

স্ত্রী’কে সরি বলুনঃ স্ত্রী’কে আপনি যে শ্রদ্ধা করেন সেটা তাকে বুঝাবেন কোন ভুল হয়ে গেলে সরি বলার মাধ্যমে। পুরুষদের দ্বারা এমন অনেক সময় অনেক কাজ হয়ে যায় যেগুলো স্ত্রী’রা সহ’জে মেনে নিতে পারে না। এমন পরিস্থিতিতে সরি বলে তাকে স্বাভাবিক করুন। আপনি বোঝান আপনি তাকে শ্রদ্ধা করেন। এভাবেও সেও আপনার প্রতি অনেক উচ্চ ধারনা পোষন করবে।

আপনার প্রতিটি কাজের দায় দায়িত্ব নিজে নিনঃ আপনি যে কাজগুলো করবেন প্রতিটি কাজের দায় দায়িত্ব আপনি নিজে বহন করুন। নিজের কাজগুলো নিজে দায়িত্ব সহকারে সম্পন্ন করুন।

এতে করে আপনার প্রতি স্ত্রী’র শ্রদ্ধা আরো বেড়ে যাবে। আবার অনেক সময় দেখা যায় কোন কাজ করার পর সেটি সফল ভাবে না হলে স্বামীরা স্ত্রী’দের কে দোষারোপ করতে থাকেন, এই বলে যে, “তোমা’র জন্য এটা হয়নি”। এটা মোটেও উচিৎ নয়।

স্ত্রী’র জন্য আলাদা ভাবে কিছু অর্থ বরাদ্দ করুনঃ বেশিরভাগ পুরুষ মানুষই অর্থ উপার্জনের পিছে নিজের জীবনের বেশিরভাগ সময় ব্যয় করে থাকেন, তবে এই বিষয়টি অনেকেরই মা’থায় আসে না যে নিজের স্ত্রী’র জন্য আলাদা ভাবে কিছু অর্থ বরাদ্দ করা দরকার। হোক সেটা তার পছন্দের কিছু কিনে দেওয়ার জন্য অথবা তাকে নিয়ে দূরে কোথাও বেড়িয়ে আসার জন্য।

এমনো হতে পারে আপনি তার জন্য আলাদা ভাবে অর্থটি জমাতে থাকলেন এবং পরিমানটি একটু বড় হলে পরে তার হাতে সেটি তুলে দিলেন সারপ্রাইজ গিফট হিসেবে। এই উদ্দেশ্যে আপনি দাম্পত্য জীবনে স্ত্রী’কে খুশি করতে হালাল ভাবে কিছু এক্সট্রা উপার্জনের ব্যবস্থাও করতে পারেন চাইলে। যেমনঃ টিউশন, ফ্রি ল্যান্সিং, এডিটিং ইত্যাদি।

সবসময় স্ত্রী’র মতামত নিনঃ টিমওয়ার্ক এর সবচেয়ে বড় কাজ হচ্ছে মতামত নেওয়া। সাংসারিক প্রতিটি কাজে আপনার স্ত্রী’র মতামত নিন। তার কোন মতামতে ভুল ত্রুতি থাকলে ঠান্ডা মা’থায় তাকে সেটা বুঝানোর চেস্টা করুন।

এতে করে ধীরে ধীরে আপনাদের মাঝে বন্ধন দৃঢ় হবে এবং একে অ’পরের মতামত কে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনাও করতে শিখবেন। তবে বেশিরভাগ সময় যেটা দেখা যায় মতামত নেওয়ার সময় তীব্র ঝগড়ার সৃষ্টি হয় এবং পরিশেষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে কোন একজনের অমতে। এক্ষেত্রে একে অ’পরের কথার মূল্য দিতে জানতে হবে, একে অ’পরের পরিস্থিতি বুঝতে হবে।

দাম্পত্য জীবন কে সুখী করতে অ’পর পক্ষ কী’ করলো সেটা না ভেবে আপনি কি করলেন সেটা নিয়ে ভাবুন। আপনি এক পা আগে বাড়ালে অ’পর পক্ষও কিন্তু বসে থাকবে না। নিজের ভুল ত্রুটি গুলো শুধরে অন্য পক্ষকে শুধ’রাতে চাইলে তখন তার আর কিছু বলার থাকে না।

তবে পুরুষদের ক্ষেত্রে নিজের সারাদিনের ক্লান্তি কে উপেক্ষা করে এই কাজগুলো করা ক’ষ্ট’কর হলেও অসম্ভব নয় কিন্তু। আম’রা আমাদের পারিবারিক জীবনকে সুখী করার জন্য এবং নিজের জীবন সঙ্গীকে একটু ভালো লাগা দেওয়ার জন্য এতোটুকু তো করতেই পারি, তাই না?

Check Also

স্বা’মীকে আঁচলে বেঁধে রাখতে যে কথাগুলো প্রতিদিনই বলা উচিত!

সম্পর্কে কতোকিছুই তো হয়ে থাকে। রাগ, দুঃখ, অভিমান, ভালোবাসা, আনন্দ, সহানুভূতি, সহমর্মিতা সব কিছু মিলিয়েই …