Home / Uncategorized / ভা’রতীয় সে’নাদের গো’লায় ৪ পাকি’স্তানি নি’হ’ত

ভা’রতীয় সে’নাদের গো’লায় ৪ পাকি’স্তানি নি’হ’ত

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সীমান্তের নিয়ন্ত্রণ রেখায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর ছোড়া গোলায় চার বেসামরিক নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। বৃহস্পতিবার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিবৃতিকে উদ্ধৃত করে আল জাজিরা এখবর জানিয়েছে।

পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল বাবর ইফতেখার বিবৃতিতে বলেছেন, নিয়ন্ত্রণ রেখার নিখিয়াল ও বাগসার এলাকার বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্য করে এসব গোলা ছোড়া হয়।

তিনি আরো বলেন, নিখিয়াল ও বাগসার সেক্টরে বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্য করে গোলা ছোড়ে ভারতীয় সেনাবাহিনী অস্ত্রবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে। পাকিস্তান সেনাবাহিনী জানায়, সীমান্তের যে এলাকায় হামলা চালানো হয়েছে তা আবাসিক অঞ্চল। সেখানে বেসামরিক লোকজনের বসবাস। নিহতদের মধ্যে এক নারী রয়েছেন। এছাড়া আরো কয়েক জন আহত হয়েছেন।

পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর মুখপাত্র আরো জানিয়েছেন, ভারতীয় গোলা-গুলির জবাব দিতে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীও পাল্টা গুলি চালিয়েছে।
এদিকে, পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স গৌরব আহলুওয়ালিকে ডেকে এনে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক মহাপরিচালক জাহিদ হাফিজ চৌধুরী ভারতের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্সকে বলেছেন, ভারতীয় বাহিনী নিরপরাধ মানুষকে হত্যার মাধ্যমে ২০০৩ সালের যুদ্ধবিরতি বিষয়ক সমঝোতা লঙ্ঘন করছে এবং মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক আইন ও রীতিনীতির প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করেছে।

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ গত ১৫ জুন রাতে লাদাখের গালওয়ান উপত্যকা এলাকায় ভারত-চীন সেনা সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনার প্রাণহানির ঘটনায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন সেনাদের আত্মত্যাগ বৃথা যাবে না।

মোদি বলেন, ভারত সাংস্কৃতিক দিক থেকে একটি শান্তিপ্রিয় রাষ্ট্র। আমাদের ইতিহাসও শান্তিপ্রিয়। আমরা কলিযুগে গোটা সংসারে শান্তি স্থাপন করেছি ও মানুব সমাজের কল্যাণে প্রার্থনা করেছি। আমরা সবসময়ই প্রতিবেশি রাষ্ট্রের সাথে পারস্পরিক সহযোগিতা ও বন্ধুত্বপূর্ণ সহাবস্থান মেনে কাজ করে আসছি। আমরা সবসময় প্রতিবেশিদের অগ্রগতি ও কল্যাণে প্রার্থনা করেছি। যেখানেই আমাদের মতের অমিল হয়েছে সবসময় চেষ্ট করেছি যে ভুল বোঝাবুঝি যেন না হয়। চেষ্টা করেছি মতপার্থক্য যাতে বিরোধে পরিণত না হয়।

তিনি আরও বলেন, আমরা কখনও কাউকে উস্কানি দিই না কিন্তু আমাদের নিজেদের দেশের একতা ও সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে কোন সমঝোতা করি না। যখনই সময় এসেছে, তখনই দেশের একতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমাদের শক্তি প্রদর্শন করেছি, ক্ষমতা দেখিয়েছি।

মোদির অভিমত, ত্যাগ ও প্রতীক্ষা আমাদের দেশের বৈশিষ্ঠ্য। তেমনি বীরত্ব ও সাহসিকতাও দেশের চরিত্র। আমি দেশকে আশ্বস্ত করে বলতে চাই যে আমাদের জওয়ানদের বলিদান কখনও বিফলে যাবে না। আমাদের কাছে দেশের একতা ও সার্বভৌমত্বই সবার উপরে এবং তা রক্ষা করতে আমাদের কেউ আটকাতে পারবে না। এ ব্যাপারে কারও মনে কোন ভুল ধারনা না থাকাই ভাল।

এসময় নরেন্দ্র মোদির হুঁশিয়ারি দিয়ে জানান, ভারত শান্তি চায়। কিন্তু যে কোন উস্কানির জবাব দিতে ভারত সক্ষম-তা পরিস্থিতি যাই হোক না কেন। আমাদের নিহত সেনাদের প্রতি দেশের গর্ব হওয়া উচিত যে তারা মারতে মারতে মরেছে।

এরপর নিহত সেনাদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দুই মিনিট নীরবতা পালন করেন নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রীর সাথেই ভার্চুয়াল মিটিং’এ উপস্থিত অন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরাও দাঁড়িয়ে দুই মিনিট নীরবতা পালন করেন।

উল্লেখ্য গত সোমবার রাতে লাদাখ সীমান্তে চীনা ও ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ২০ ভারতীয় সেনা সদস্য নিহত হন। কোনও ধরনের গোলাবারুদের ব্যবহার না হলেও ব্যাট, বাঁশের লাঠি নিয়ে দুই পক্ষের সৈন্যরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় একে অপরকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপও করে।

সংঘর্ষে চীনা সৈন্য হতাহত হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও তথ্য জানায়নি বেইজিং। তবে ভারতীয় সরকারি সূত্রগুলো দাবি করেছে, লাদাখের ওই সংঘর্ষে চীনের অন্তত ৪০ সৈন্য হতাহত হয়েছে।

গত ৪৫ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম এ ধরনের ভয়াবহ প্রাণঘাতী সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছে উভয় দেশের সৈন্যরা। এই সংঘাতের জন্য পরস্পরকে দায়ী করেছে পারমাণবিক অস্ত্রধারী চিরবৈরী এ দুই প্রতিবেশী।
সূত্র: পার্সটুডে

Check Also

সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে যে হচ্ছেন শেখ হাসিনার পরে আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এলেই প্রথম যে প্রশ্নটি সামনে আসে তা হলো শেখ হাসিনার পর কে? …