Home / Beauty Tips / ক’রোনা আ’ক্রান্ত ছে’লের সাথে গো’পনে বিয়ে!

ক’রোনা আ’ক্রান্ত ছে’লের সাথে গো’পনে বিয়ে!

ঈশ্বরদীতে ক’রোনা আ’ক্রান্ত ছে’লের সা’থে অ’প্রাপ্ত ব’য়স্ক মে’য়েকে গো’পনে দিয়ে বি’পাকে পড়েছেন প’রিবার। বি’ষয়টি জানাজানি হলে শুক্রবার (২৯ মে) বিকেলে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ মে’য়ের বা’বার শহরের ফকিরের বটতলা এলাকার বাড়ি লকডাউন করেছেন। এ ঘটনায় এলাকায় চা’ঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, ঈশ্বরদী শহরের ফকিরের বটতলা এলাকার ইলেকট্রিক মিস্ত্রী আশরাফ হোসেন চুনি

ঈদুল ফিতরের আগের দিন অতি গো’পনে তার কলেজ পড়ুয়া মে’য়ে শর্মিকে বি’য়ে দেন কুষ্টিয়ার ভেড়ামা’রার ষোলদাগ গ্রামের রাসেল নামে এক যু’বকের সাথে।শর্মি ঈশ্বরদী মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণি ব্যবসায় শিক্ষা শাখার ছা’ত্রী বলে জানা গেছে।আশরাফ হোসেনের প্রতিবেশি সোহান জানান, বি’য়ের পাত্র রাসেল ঢাকাতে ইন্টারনেট ব্যবসার সাথে জ’ড়িত। ক’রোনা উ’পসর্গ নিয়েই সে তার গ্রামের বাড়ি ভেড়ামা’রায় আসে।গত এক সপ্তাহ আগে তার নমুনা পরীক্ষার জন্য জমা দেয়া হয়। এরমধ্যেই ঈদের আগের দিন গত ২৪ মে সে ঈশ্বরদী শহরের ওই বাড়িতে গো’পনে বি’য়ে করে।

একই এলাকার ইলেকট্রনিক ব্যবসায়ী ইমরান হোসেন জানান, ওই যুব’ক বি’য়ের পর নতুন বউ নিয়ে তার ভেড়ামা’রার বাড়িতে ৪ দিন অ’বস্থান করেন।শর্মির প’রিবারের লোকজনও ঈশ্বরদী থেকে ভেড়ামা’রায় মে’য়ের বাড়িতে বেড়াতে যান। শুক্রবার সদ্য বি’য়ে করা ওই যু’বক রাসেলের ক’রোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে।তিনি আরো জানান, ক’রোনা রিপোর্ট আসার পরপরই বি’ষয়টি ভেড়ামা’রা ও ঈশ্বরদী শহরে

জানাজানি হলে এ’লাকায় আ’তঙ্ক ও চা’ঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।খবর পেয়ে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ শহরের মে’য়ের বাবার বাড়িটি লকডাউন করে এবং বাড়ি থেকে কাউকে বাইরে বের না হতে ক’ঠোরভাবে নি’র্দেশ দেয়।বাড়ির সকলের নমুনা পর জন্য সংগ্রহ করা হবে বলে প্রশাসন জানিয়েছে।এদিকে, ভেড়ামা’রার ষোলদাগ গ্রামের রাসেলের বাড়িও ওই এলাকার প্রশাসন লকডাউন করেছে বলে জানা গেছে।

যাদের বোন আছে- নিউক্লিয়ার ফ্যামিলি গড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বিদায় নিয়েছে ঘরভর্তি শি’শুর হৈ-হুল্লোড় করে বেড়ে ওঠাও। এখন প্রায় সব বাসায়ই একটি কি দুটি শি’শু। পরবর্তী প্রজন্ম বেড়ে উঠছে অনেকটা নিঃসঙ্গতাকে সঙ্গী করে। ভাইবোনের খু’নসুটি, খেলনা কিংবা খাবার নিয়ে কাড়াকাড়ির স্মৃ’তি তাদের নামের পাশে জমা হচ্ছে না।

এদিকে কন্যা সন্তান নিয়ে মন খা’রাপ করার কুপ্রথা অনেকটা কমলেও, পুরোপুরি এখনও কমেনি। এখনও বেশিরভাগ বাড়িতেই একের অধিক কন্যাশি’শু হলেই মন খা’রাপের ঢল নামে যেন। কোনো কোনো সংসারে তো অশান্তিও দেখা দেয়। বদলে যাওয়া অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় এক সন্তান নীতি লাভজনক হলেও আপনার একমাত্র সন্তানের জন্য তা মোটেও লাভজনক নয়।

ভাই বা বোনের সঙ্গে বেড়ে ওঠা একটি শি’শুর জীবনে অত্যন্ত আনন্দদায়ক বলে জানাচ্ছে গবেষণা। তার মধ্যেও বিশেষ ভাবে বিজ্ঞানীরা বলছেন বোন থাকার কথা। ছেলে হোক বা মেয়ে,

তার যদি একটি বোন থাকে তো সেই জীবনের আনন্দই আলাদা বলে গবেষণায় প্রকাশ। তাই এখনও কন্যা সন্তান জন্ম নিলে যাদের দুঃখের শেষ থাকে না, তারা দেখে নিন যে আপনার মেয়ে আপনাকে কতভাবে সাহায্য করতে পারে।ছোটবেলা থেকে বড় হয়ে উঠেও বোন সবচেয়ে কাছের বন্ধু হতে পারে।

নিজের বোন থাকলে সেই শি’শুর মধ্যে মায়া-মমতা ও ভালোবাসার মতো গুণ সবচেয়ে বেশি প্রকাশ পায়। ম্যাচিওরিটিও তাড়াতাড়ি আসের বোনের প্রভাবে। এমনটাই বলছেন বিজ্ঞানীরা।৩৯৫টি পরিবারের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে এই সিদ্ধান্তে এসেছেন ব্রিংহাম ইয়ং ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। এমনকি ভাই-বোনের মধ্যে ঝগড়াও মানসিক বিকাশের জন্য অ’ত্যন্ত উপযোগী বলে জানাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

Check Also

মেয়েদের পাঁচটি অঙ্গ বড় হলে স্বামীরা সৌভাগ্যবান হয়ে থাকে।

মেয়েদের পাঁচটি অঙ্গ বড় হলে স্বামীরা সৌভাগ্যবান হয়ে থাকে। মেয়েদের শরীর আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য …