Home / Home Remedies / রাতে বিছানায় সঙ্গীনির সাথে যে ১০টি মারাত্বক ভুল করে থাকেন ছেলেরা!

রাতে বিছানায় সঙ্গীনির সাথে যে ১০টি মারাত্বক ভুল করে থাকেন ছেলেরা!

নারীর জন্য কাঙ্খিত ভালোবাসার পুরুষরা সহবাস নিয়ে প্রবল আগ্রহ থাকার পরেও বিছানায় গিয়ে তারা ব্যর্থতার পরিচয় দেন সামান্য কিছু অসতর্কতার কারণে।

শয্যায় বেশকিছু ভুল তারা করেই থাকেন। সেই ভুলগুলি শুধরাতে পারলে আরো বেশি উপভোগ্য হতে পারে সহবাস জীবন। একনজরে জেনে নেয়া যাক সে ভুলগুলো…

চুপচাপ থাকা : বেশিরভাগ পুরুষই বিছানায় সহবাস করার পুরো সময়টাতে চুপ করে থাকেন। এটা বড় ধরণের একটা ভুল। এক্ষেত্রে নিজের আবেগ বোঝাতে অহেতুক শব্দ করার প্রয়োজন নেই; কিন্তুমুখে কুলুপ এঁটে সঙ্গিনীকে নিয়ে মোটেও উত্তেজনার শীর্ষে পৌঁছানো সম্ভব নয়।

তাড়াহুড়ো করা : বিছানায় রতিক্রিয়ার সময় পুরুষের এ কথাটি বেশি মনে রাখতে হবে… সবুরেই মেওয়া ফলে। কিন্তু অনেক সময় মিলনের সময় পুরুষের দেরি সহ্য হয় না।

খুব তাড়াহুড়ো করে রতিক্রিয়া শেষ করতে চান তারা। এটা আপনি বা আপনার সঙ্গিনীকে মোটেও সহবাসে সুখ দিতে পারবে না। তাই সময় নিয়ে পুরো সময়টাকে উপভোগ করুন।

নিজের শক্তি দেখানো : রতিক্রিয়ার শেষ দিকে মুহুর্তে পুরুষরা অনেক সময়ই সঙ্গিনীকে অতিরিক্ত চাপ দেন। এটা মোটেও ঠিক নয়। নারীর শরীর পুরষদের তুলনায়কমনীয়। তাই নিজের শরীরের জোর সঙ্গিনীর উপর খাটাবেন না।

ওরাল বাধ্য করা : ছবির মতো বাস্তব জীবনে শৃঙ্গার করতে গেলে বিপদের সম্ভাবনা থাকে। তাই রতিক্রিয়ার সময় কোনো পুরুষেরই উচিত নয় পার্টনারকে ওরাল বাধ্য করা। সঙ্গিনীর ব্যক্তিগত পছন্দকে গুরুত্ব দিন।

প্রবেশে সাবধানতা : অনেক সময় প্রবল উত্তেজনার কারণে হুট করেই পুরুষরা নারীর …. প্রবেশ করান। এর ফলে সঙ্গিনীর মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে নারীর পেশি নরম হয়। তাই সেখানে জোর প্রয়োগ না করে সাবধানতা অবলম্বন করা।
যৌ’ন শিক্ষা – জীবনের(life) জন্য শিক্ষা। করতে সাহসী হউন – নিজের এবং অন্য বন্ধুদের ত’থ্য জানায় সহায়তা করুন। যৌ’নতা ছাড়া জীবন (life) অচল – তাই সংসারে সুখের জন্য যৌ’ন শিক্ষা নিন। জীবনের(life) জন্য যৌ’ন শিক্ষা।

অনেক পু’রুষেরই যৌ’ন মি’লনের সময় খুব তাড়াতাড়ি বী’র্য (sperm) পতন হয়। কাংখিত সুখ স্ত্রী (wife) কে দিতে পারেনা। আমাদের আজকের টিউটোরিয়াল টি তাদের জন্য যাদের খুব তাড়াতাড়ি বী’র্য (sperm)পতন হয়।
মি’লনে পু’রুষের অধিক সময় নেওয়া পু’রুষত্বের মুল যোগ্যতা হিসাবে গন্য হয়। যেকোন পু’রুষ বয়সেরর সাথে সাথে মি’লনের নানাবিধ উপায় শিখে থাকে। এখানে বলে রাখতে চাই – ২৫ বছরের কম বয়সী পু’রুষ সাধারনত বেশি সময় নিয়ে মি’লন করতে পারেনা। তবে তারা খুব অল্প সময়
ব্যাভধানে পুনরায় উ’ত্তেজিত/উত্তপ্ত হতে পারে। ২৫ এর পর বয়স যত বাড়বে মি’লনে পু’রুষ তত বেশি সময় নেয়। কিন্তু বয়স বৃ’দ্ধির সাথে সাথে পুনরায় জাগ্রত (ইরিকশান) হওয়ার ব্যাভধানও বাড়তে থাকে।

তাছাড়া এক না’রী কিংবা একপু’রুষের সাথে বার বার মি’লন করলে যৌ’ন মি’লনে বেশি সময় দেয়া যায় এবং মি’লনে বেশি তৃ’প্তি পাওয়া যায়। কারন স্বরুপ: নিয়মিত মি’লনে একে অপরের শ’রীর এবং ভাললাগা/মন্দলাগা, পছন্দসই আসনভঙ্গি, সুখ দেয়া নেয়ার পদ্ধতি (system) ইত্যাদি স’ম্পর্কে ভালভাবে অবহিত থাকে।

Check Also

সকালে এক কোয়া রসুন খেলে ৮ রোগ কাছেও ঘেঁষবে না,বিস্তারিত পড়ুন

খাবার রান্না করার জন্য আমরা সাধারণত রসুন ব্যবহার করে থাকি। তবে অনেকেই জানি না, এই …