Home / Daily Health Tips / লকডাউনের এই সময়ে ঘরে থেকে ওজন বেড়ে যাচ্ছে? মেনে চলুন এই ৫ সহজ নিয়ম!

লকডাউনের এই সময়ে ঘরে থেকে ওজন বেড়ে যাচ্ছে? মেনে চলুন এই ৫ সহজ নিয়ম!

লকডাউনের এই সময়ে ঘরে থেকে ওজন বেড়ে যাচ্ছে? মেনে চলুন এই ৫ সহজ নিয়ম!

মুক্ত পাখির মতো মন নিয়ে ঘরে বন্দি থাকতে কার-ই বা মনে চায়! তবু নিরুপায় হয়ে ঘরে বন্দি থাকতে হচ্ছে। এটি এই সময়ে নিজেকে এবং আশেপাশের সবাইকে সুস্থ রাখার একমাত্র উপায়। মরণঘাতী এই রোগের প্রকোপ কবে কমবে, কবে আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা হবে সেকথা কেউ জানে না।

করোনাভাইরাস বিদায় নিলেও তার ছাপ রেখে যাবে। একটি অনিশ্চিত জীবনযাত্রা শুরু হবে তার পর থেকে। দেখা দেবে আর্থিক মন্দা, কাজ হারাবেন অসংখ্য কর্মী। এসব খবর নিশ্চয়ই উদ্বেগজনক। এতে মানসিক চাপ বৃদ্ধি অস্বাভাবিক নয়। এই স্ট্রেসের সঙ্গে ওজন বৃদ্ধির রয়েছে সরাসরি যোগ। আর বাড়তি ওজন ডেকে আনতে পারে আরও দশটা শারীরিক সমস্যা। তাই এই সময়ে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার উপায় জেনে নিন-

নিয়ন্ত্রণে রাখুন মানসিক চাপ: কিছু বিষয় থাকে যা আপনি চাইলেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না। সেসব বরং মেনে নিয়ে ভালো থাকার চেষ্টা করতে হবে। পৃথিবীর কোথায় কত মানুষের মৃত্যু হলো তা ভেবে মানসিক চাপ না বাড়িয়ে বরং ফুরফুরে মেজাজে থাকার চেষ্টা করুন। সংসারের টুকিটাকি কাজগুলো সারুন। নিজের সব কাজে সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করুন।

প্রসেসড ফুড বাদ দিন: বাইরের মুখরোচক সব খাবার খেয়ে অভ্যাস? এবার থেকে সেসব একেবারেই বাদ দিন। সহজ ও পুষ্টিকর খাবার বেছে নিন। নিজেই রান্নাটা শিখে নিন এবার। রান্না শেখার কাজে সাহায্য নিতে পারেন ইন্টারনেটের। প্রসেসড সব ধরনের খাবার এড়িয়ে চলুন। খাবার থেকে বাদ দিন অতিরিক্ত চিনি আর ময়দাও।

হাঁটাচলা করুন: এই সময়ে সারাদিন শুয়ে-বসে কাটাবেন না। একটু হাঁটাচলা, ব্যায়াম করা অত্যন্ত জরুরি। সারাদিন শুয়ে-বসে থাকলে ওজন বাড়বে, দেখা দেবে আরও নানান ব্যাধি। সবচেয়ে বড়ো কথা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমবে। ঘরে, ছাদে, বারান্দায় নিয়ম করে হাঁটুন। বাড়ি পরিষ্কার রাখুন।

নিয়ম মেনে পানি পান করুন: বাড়িতে অনেকটা বিশ্রামে আছেন বলেই ঘাম কমবে, কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে আপনি কম পানি খেলেও চলবে। প্রতি দেড় ঘণ্টা পরপর একগ্লাস পানি খাওয়া প্র্যাকটিস করুন। খাবার খাওয়ার এক ঘণ্টা পর পানি খাবেন।

পর্যাপ্ত ঘুম: সারাদিন বাড়িতে থাকার দরুন সব নিয়ম পাল্টে গেছে? রাত জেগে মুভি দেখা কিংবা নেটে ঘাঁটাঘাঁটি চলে? আবার সকাল হতেই রুটিনবদ্ধ কাজ? এসব অনিয়ম এখনই বাদ দিন। প্রতি রাতে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান। অন্তত আট ঘণ্টা ঘুমান।

Check Also

না জেনে হিজড়ার সঙ্গে বিয়ে হওয়া এক নারীর জীবনের কথা

আধুনিক ভারতীয় না’রীদের চি’ন্তাভাবনা-বি’বেচনা নিয়ে শুরু হয়েছে বিবিসি হিন্দির বি’শেষ ধা’রাবা’হিক প্র’তিবেদন ‘হার চয়েস’। ১২ …