Home / Uncategorized / নাভির নিচের পশম পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রী কি একে অপরকে সাহায্য করতে পারবে? ইসলাম কি বলে?

নাভির নিচের পশম পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রী কি একে অপরকে সাহায্য করতে পারবে? ইসলাম কি বলে?

হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের জীবনের সকল ক্ষেত্রেই রাহনুমা করে গেছেন। ঘরে ও বাইরে এমন কোন দিক নেই যা রাসূল (সা.) আমাদের সামনে তুলে ধরেননি। তার এই সামগ্রিক শিক্ষার তুলনা পৃথিবীর আর কোনো ধর্মেই ছিল না।

তিনি যেভাবে স্বামী-স্ত্রীর অধিকার স্পষ্ট করে তুলে ধরেছেন এবং পারিবারিক জীবনের প্রতিটি সমস্যার সমাধান আমাদের সামনে খোলাসা করেছেন। আর এটা কেউ আগে কখনো করেনি।

সেই ব্যপকতার একটি অংশ হলো নাভির নিচের পশম পরিষ্কার করার বিধান। কোনো কোনো বর্ণনায় নাভির নিচের লোশ মুণ্ডন করার কথা আবার কোনো কোনো বর্ণনায় লোহার তৈরি ধারলো কোন যন্ত্র দিয়ে পরিষ্কার করার কথা উদ্ধৃত হয়েছে। আর এটাই মুস্তাহাব। এতে উম্মতের কারও কোনো দ্বিমত নেই। (আল ইতহাফ)।

যদি এই ক্ষেত্রে স্বামী স্ত্রীকে সাহায্য করতে বলে তাহলে স্ত্রীর জন্য এটা ওয়াজিব বলে বিবেচিত হবে। (শরহে মুহায্যাব) এই ক্ষেত্রে ৪০ দিনের চেয়ে বেশি দেরি করা মাকরূহ। সর্বনিম্ন কোনো মেয়াদ নির্ধারিত নেই। বরং ব্যক্তির পশম বড় হওয়ার ওপরই এর বিধান নির্ভরশীল।

তাই এই ক্ষেত্রে এক একজনের এক এক ধরনের মেয়াদ হতে পারে। (শরহে মুহায্যাব।

মূল উদ্দেশ্য হলো পরিচ্ছন্নতা- সেটা ক্ষুর দিয়ে হোক বা অন্য কিছু দিয়ে। (ফতওয়ায়ে আলমগিরী) এই ক্ষেত্রে নিজের কাজ নিজে করাই উত্তম। তবে স্বামী-স্ত্রী পরস্পরকে সাহায্য করতে পারে। তাও মাকরূহ মুক্ত নয় (শরহে মুহায্যাব)।

নাভির নিচের লোম পরিষ্কার করার সময় উপর দিক থেকে শুরু করা উত্তম। (ফতওয়ায়ে আলমগিরী)।

গোপনশক্তি বাড়ানোর ঘরোয়া পদ্ধতি

কীভাবে যৌ*নশক্তি বাড়াবেন? এখনই জেনে নিন যৌ-নশক্তি বাড়ানোর ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি :

আমাদের শরীর থেকে প্রতিনিয়ত প্রচুর পরিমানে ক্যালরী ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে।যা বর্তমানে অন্যতম প্রধান একটি সমস্যা।ক্ষয়ের এই ঘাটতি পূরনের জন্য প্রচুর পরিমানে পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহন করার প্রয়োজন হয়।আর এই যৌ*নশক্তি আমাদের শরীরের একটি অংশ।যদি আমাদের শরীর ঠিকমতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি না পায় তাহলে যৌ*নশক্তির বিকাশ ঘটানো একেবারেই সম্ভবপর নয়।যৌ*নশক্তির দুর্বলতাকে কাটিয়ে তুলুন।একনজরে দেখে নিন যৌ*নশক্তি বাড়ানোর ঘরোয়া উপায়গুলিঃ-

১) প্রত্যেক সপ্তাহে কমপক্ষে (৩/৪)দিন ১ গ্লাস মৃদু উষ্ণ গরম জলে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন। যৌ*নশক্তি বাড়াতে মধুর ভূমিকা অনেক। ২) নিয়ম করে প্রতিদিন সকালে ১ টি করে ডিম সিদ্ধ ডিম খেতে পারেন। প্রতিদিন সম্ভব না হলে সপ্তাহে কমপক্ষে ৫ দিন খান।

৩) প্রতিদিন দুধ খান। দুধ একটি আদর্শ সুষম খাবার।(ছাগলের দুধও খেতে পারেন। কারণ ছাগলের দুধ বেশী উপকারী। ৪) যদি দিনে বেশী পরিশ্রম করে থাকেন তাহলে যৌ*নশক্তির মহৌষধ নাইট কিং প্রতিদিন দুইবার পান করুন। (এক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে পারেন।)

৫) প্রতিদিন নিয়ম করে হালকা ব্যায়াম করতে পারেন।যা স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই ভালো। ৬) বর্তমানে ঘুমের ঘাটতি প্রায় অনেকেরই থেকে যায়।তাই পর্যাপ্ত পরিমানে ঘুমান।

৭) প্রতিদিন সকালে ইসব গুলের ভুসি মিশ্রিত জল পান করতে পারেন। যৌ*নশক্তি বাড়াতে উপরিউক্ত নিয়ম গুলো নজরে রাখবেন। আশা করা যায় কিছু সময়ের মধ্যে যৌ*ন দুর্বলতা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। যদি আপনার পেটের সমস্যা থাকে তাহলে পেট পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন।বিশেষ করে পায়খানা যেন ভালো হয়। প্রতিবেদনটি উপকৃত মনে হলে আপনজনদের কাছে শেয়ার করবেন।

Check Also

সব জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে যে হচ্ছেন শেখ হাসিনার পরে আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এলেই প্রথম যে প্রশ্নটি সামনে আসে তা হলো শেখ হাসিনার পর কে? …