Home / Daily Health Tips / শুধু ফিটনেস নয়ম যৌ’বন ধরে রাখতে ও সুন্দর ত্বকের জন্যে এই নিয়মে শশা খান!

শুধু ফিটনেস নয়ম যৌ’বন ধরে রাখতে ও সুন্দর ত্বকের জন্যে এই নিয়মে শশা খান!

শুধু ফিটনেস নয়ম যৌ’বন ধরে রাখতে ও সুন্দর ত্বকের জন্যে এই নিয়মে শশা খান!

শশা একটি পরিচিত সবজি হিসাবে অনেকই চিনি। আবার এই শশা মেয়েরা রূপচর্চায় ও ব্যাবহার করে থাকে। শশা এমন একটা ফল, যার নানা রকম উপকার ৷ এক শশাতেই আপনার শরীর থাকবে একেবারে চাঙ্গা ! শুধু ফিটনেসে সাহায্য করে না শশা, সঙ্গে ঝকঝকে সুন্দর ত্বক, যৌবন ধরে রাখতে শশার জুড়ি মেলা ভার ৷

কিন্তু জানেন কি? আমরা নিয়মিত যেভাবে শশা খেয়ে থাকি, সেভাবে শশা খেলে তার কোনও উপকারই নেই ৷ বরং অনেক সময়ই কেটে শশা খাওয়া থেকে অপকার হতে পারে ৷

চিকিৎসকরা বলছেন, কেটে, নুন ছড়িয়ে বা স্যালাডে শশা না খেয়ে বরং শশার জ্যুস বানিয়ে খান ৷ এতে যেমন ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল, তেমনি মেদ ঝড়িয়ে আপনার দেহকে করে তুলবে আকর্ষণীয় ৷ তা কীভাবে বানাবেন শশার জ্যুস !

দু’টো শশাকে গোল গোল করে কেটে নিন ৷ মিক্সারে কাটা শশা দিয়ে তার মধ্যে ছোটো চামচের দু’চামচ পাতি লেবুর রস মেশান ৷ একটু জিরা পাউডার, দুটো বা তিনটে পুদিনা পাতা, বিট নুন দিয়ে, মিক্সারে ভালো করে ঘুরিয়ে নিন ৷ তৈরি শশার জ্যুস !

চিকিৎসকরা বলছেন, এই জ্যুস নিয়মিত খেলে শরীর থেকে অতিরিক্ত মেদ কমবে ৷ ফিটনেস বজায় থাকবে ৷ তাই এখন থেকে এই নয়ম মেনে শশা খান আর দেখুন চমক।

তথ্যসূত্রঃ বাঙালি নিউজ ১৮

আরো পড়ুন…

ফ্যাটি লিভার যদি না চান তবে খাবারে রাখুন এই সবজি!

অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস এর কারনে আমাদের শরীরের নানা রকম ক্ষতি সাধন হচ্ছে। তার মধ্যে নিজের অজান্তেই ক্ষতি হচ্ছে আমাদের লিভারের।

বর্তমানে লাইফস্টাইলের কারণে ফ্যাটি লিভারের সমস্যা ঘরে ঘরে। তবে ঘরোয়া উপায়েই এই রোগ সারানো যায়। নন-অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার সারাতে ঘরোয়া কিছু উপাদানই যথেষ্ট।

গবেষকরা জানাচ্ছেন, ক্রুসিফেরাস প্রজাতির সবজি যেমন- বাঁধাকপি, ফুলকপি, ইত্যাদিতে থাকা একটি প্রাকৃতিক উপাদান সাহায্য করবে এই সমস্যা সারাতে। এই প্রজাতির সবজিতে থাকা উপাদানটির নাম ‘ইনডোল’ যা চর্বিযুক্ত যকৃতের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে সহায়ক।

আমেরিকার ‘টেক্সাস অ্যান্ড এম এগ্রিলাইফ রিসার্চ’য়ের ‘ফ্যাকাল্টি ফেলো’ চাওডং য়ু বলেন, “গবেষণার ভিত্তিতে আমাদের বিশ্বাস, যেসব স্বাস্থ্যকর খাবারে প্রচুর পরিমাণে ‘ইনডোল’ থাকে সেগুলো

এনএএফএলডি’ প্রতিরোধে এবং যাদের এই সমস্যা আছে তাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের মাধ্যমে যে বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ও প্রতিষেধন করা যায় এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করা যায় তার আরেকটি উদাহরণ আমাদের এই গবেষণা।”

যকৃতের পেশির ভেতরে চর্বি ছড়িয়ে পড়লে ‘এনএএফএলডি’ দেখা দেয়, যার কারণ হতে পারে অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, পুষ্টির অভাব, ‘স্যাচুরেইটেড ফ্যাট’য়ের মাত্রা বেশি হওয়া ইত্যাদি।

সঠিক চিকিৎসা করা না হলে এই সমস্যা ডেকে আনতে পারে প্রাণঘাতি যকৃতের রোগ যেমন- ‘সিরোসিস’ কিংবা ‘লিভার ক্যান্সার’।

১৩৭জন চীনা নাগরিকের উপর গবেষণা চালানো হয়। দেখা যায়, যাদের ‘বডি ম্যাস ইনডেক্স’য়ের মাত্রা বেশি, তাদের রক্তে ‘ইনডোল’য়ের মাত্রা থাকে কম। “শরীরের প্রতিটি কোষের ওপর ‘ইনডোল’য়ের প্রভাব নিয়েও কাজ করেন গবেষকরা।

যকৃতে কোষের চর্বি কমানোর পাশাপাশি অন্ত্রের কোষকে প্রভাবিত করে এই উপাদান, যা অন্ত্রের প্রদাহ সারাতে সহায়তা করে”, বলেন টেক্সাস অ্যান্ড এম হেলথ সায়েন্স সেন্টার’য়ের অধ্যাপক শ্যানন গ্লেসার।

Check Also

প্র’বাসীর লা’গা’তার স’হবা’সে জী’বন হা’রা’লো নুর নাহার!

বি’য়ের ৩৪ দিনের মাথায় মা’রা যাওয়া টাঙ্গাইলের অষ্টম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী নুর নাহারের (১৪) লা’শও …