Home / সারাদেশ / রাজধানীতে বর্ণিল আলো-অন্ধকারে সিসার হু’ক্কায় সুখটান দিচ্ছেন তরুণ-ত’রুণীরা!

রাজধানীতে বর্ণিল আলো-অন্ধকারে সিসার হু’ক্কায় সুখটান দিচ্ছেন তরুণ-ত’রুণীরা!

রাজধানীর অভিজাত এলাকায় দিনের পর দিন নির্বিঘ্নে চলছে অ’বৈধ সিসা লাউঞ্জ। অ’ভিযানেও অনেক সময় মেলেনা সুফল। অ’ভিযানের আগে আগে উধাও হয়ে যায় নিকোটিন, অ্যা’লকোহল। এমনকি কোনো কোনো সিসা লাউঞ্জ বন্ধ পান অ’ভিযানকারীরা। রাজধানীর বনানী, গুলশান, ধানমণ্ডি ও মিরপুর এলাকায় সিসা বার বা লাউঞ্জ রয়েছে প্রায় অর্ধশত। এর মধ্যে শুধু বনানীতেই রয়েছে ২২টি। এসব লাউঞ্জে সিসার বাইরেও রয়েছে ভিন্ন উন্মাদনা।

সম্প্রতি সিসা লাউঞ্জের ব্যাপারে ক’ঠোর অবস্থান নিয়েছে মা’দকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর।

অ’ভিযানের কারণে দৃশ্যত বন্ধ হলেও আড়ালে রয়েছে ভিন্ন গল্প। বহুতল ভবনের নিচে গেটের পাশে দাঁড়িয়ে আছেন নিরাপত্তাকর্মী। অচেনা কাউকে দেখলেই জানতে চান, কোথায় যাবেন? জবাব যদি হয় সিসা লাউঞ্জে, তাহলে তিনি জানিয়ে দেন লাউঞ্জ বন্ধ। কিন্তু বাস্তবতা উল্টো। লাউঞ্জ চলছে ঠিকই। বনানীর ডি-ব্লকের ১০ নম্বর রোডের ৬৬নম্বর বাড়িতে একটি সিসা লাউঞ্জ।

রাস্তা থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই এটি খোলা। সিঁড়ি দিয়ে উঠতেই প্রথম রুমটি দেখেই চমকে উঠতে হবে। বর্ণিল আধো আলো-অন্ধকারে সিসার হুক্কায় সুখটান দিচ্ছেন তরুণ-ত’রুণীরা। পাশাপাশি বসে টানছে তারা। ধোঁয়া উড়ছে পুরো রুমজুড়ে। সর্বত্র ছড়িয়ে আছে মিষ্টি ঘ্রাণ। বারান্দার পাশে একটি রুম। প্রায় বন্ধ অবস্থা। লাউঞ্জ কর্তৃপক্ষের পরিচিত কোনো জুটি চাইলেই রুমটি ব্যবহার করতে দেয়া হয়। সিসা টানার পাশাপাশি আবাসিক হিসেবে ব্যবহৃত হয় এই রুমটি। এজন্য অতিরিক্ত চার্জ দিতে হয় লাউঞ্জ কর্তৃপক্ষকে।

বন্ধু-বান্ধবীদের সান্নিধ্যকে আরও নিকটে নিতে প্রায় লাউঞ্জেই রয়েছে ‘কেবিন সিস্টেম’। কেউ কেউ এটিকে গুছি বলে থাকেন। হাজার-হাজার টাকা ব্যয় করে এসব লাউঞ্জে সময় কা’টান ধনাঢ্য পরিবারের প্রাপ্ত-অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে-মেয়েরা। সূত্রমতে, সাটার নামিয়ে, অচেনাদের বন্ধ দেখিয়ে চেনা-জানা গ্রাহকদের সেবা দিচ্ছে লাউঞ্জগুলো।

কৌশলে চলছে বনানীর ই ব্লকের ১২ নম্বর রোডের একটি সিসা বার। ১০ তলায় লিফট থেকে নামতেই লাল সোফা, আধো আলো-আঁধারে মানুষের ভিড়। সেখানে দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছে, কোনো ঝামেলা হবে কিনা জানতে চাইলে মৃদু হেসে জানান, ঝামেলা করবে কে, সব ম্যানেজ করেই চালাচ্ছি। অ’ভিযান হলে আগেই খবর আসবে। কোনো ঝামেলা নেই স্যার। বিকাল থেকে রাত ২টা পর্যন্ত লাউঞ্জটি খোলা থাকে পরিচিত গ্রাহকদের জন্য।

বনানীর ১১ নম্বর সড়কের একটি ভবনের ষষ্ঠ তলায়, ১১ নম্বর রোডের জি ও এইচ ব্লকে রয়েছে সিসা লাউঞ্জ। ওই রোডের একটি লাউঞ্জে শুধু সিসা নয়, সরাসরি ম’দ ও বিয়ার বিক্রি করা হয়। এই লাউঞ্জের মালিক দীর্ঘদিন থেকেই সিসা বাণিজ্য করছেন। তার মাধ্যমেই নতুনরা এই পথে হাঁটার সুযোগ পায়। এসব বি’ষয়ে ওই মালিক বলেন, আমি আ’দালত থেকে এ বি’ষয়ে স্টে অর্ডার নিয়ে চা’লিয়েছি। অর্ডারের মেয়াদ শেষ হওয়ায় আমি লাউঞ্জ বন্ধ রেখেছি। কিছুক্ষণ পর কল দিয়ে জানান, লাউঞ্জটি তিনি বিক্রি করে দিয়েছেন।

নিকেতন ও গুলশানে রয়েছে ৬টি লাউঞ্জ। লাউঞ্জ রয়েছে ধানমণ্ডি ও মিরপুরে। গুলশান বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চ’ক্রবর্তী বলেন, সিসা লাউঞ্জ থেকে পুলিশ টাকা নিচ্ছে, এ রকম তথ্য প্রমাণ পেলে ক’ঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে, এটা সত্য প্রকাশ্যে অ’ভিযান করতে গেলে সিসা লাউঞ্জের মালিকরা টের পেয়ে যায়। তাই আমি যখনই অ’ভিযানে নামি তা গো’য়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গো’পনে। অ’ভিযান করার পরও লাউঞ্জের সংখ্যা না কমার কারণ হিসেবে ডিসি জানান, মালিকরা স্থান পরিবর্তন করে।

সূত্রমতে, বনানীর বেশ কয়েকটি লাউঞ্জে রাতভর ডিজেসহ নানা পার্টি হতো। একটি লাউঞ্জে ৪-৫টি রুম আছে অন্তরঙ্গ সময় কা’টানোর জন্য। সম্প্রতি সিসা লাউঞ্জে কড়াকড়ির ফলে বিকল্প পথে হাঁটছেন মালিকপক্ষ। এটি মা’দক নয় বা নিকোটিনের পরিমাণ দুই পয়েন্টের নিচে রয়েছে, এমনটি প্রমাণ করতে চেষ্টা করছেন তারা। ২০১৮ সালের ২৭শে ডিসেম্বর থেকে ‘মা’দকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮’ কার্যকর হয়েছে। ওই নতুন আইনে সিসাকে মা’দকদ্রব্যের ‘খ’ শ্রেণির তালিকাভুক্ত করে নি’ষিদ্ধ করা হয়েছে।

এই আইনে মা’দক সম্পর্কিত অ’পরাধ প্রমাণিত হলে ন্যূনতম এক বছর থেকে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কা’রাদ’ণ্ড ও নগদ অর্থদ’ণ্ডের বিধান রয়েছে। এসব বি’ষয়ে মা’দকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্ম’দ আহসানুল জব্বার মানবজমিনকে বলেন, এ বি’ষয়ে আমরা অত্যন্ত ক’ঠোর। অ’সাধু কর্মকর্তাদের বি’রুদ্ধে যথাযথ তথ্য পেলেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি। সূত্রঃ মানবজমিন

Check Also

স্ত্রীর অনুরোধে লাইফ সাপোর্টে থাকা স্বামীর থেকে সংগ্রহ করা হল শুক্রাণু

করোনা আক্রান্ত স্বামী হাসপাতালে ভর্তি। রয়েছেন লাইফ সাপোর্টে। কিন্তু স্ত্রী চান সন্তান ধারণ করতে। সেই …