Home / এক্সক্লুসিভ / মেয়েরা বিয়ের প্রস্তাব পেয়ে লজ্জায় গোপনে ১০টি কাজ করে

মেয়েরা বিয়ের প্রস্তাব পেয়ে লজ্জায় গোপনে ১০টি কাজ করে

কিছু উদ্ভট অজুহাত দেখিয়ে মেয়েরা বিয়ে করতে চায় না। সাধারণত ২৪ বা ২৫ বছর বয়সে মেয়েরা বিয়ে করতে চান না। কিন্তু বাবা-মা জোর করে হলেও এই সময়টাতে মেয়েদের বিয়ে দিতে চান।

কিন্তু আধুনিক অনেক মেয়ে স্বাধীনতা থাকবে না-এই কথা ভেবে বিয়ে করতে চান না। তবে মেয়েরা বিয়ে না করার জন্য যেসব অজুহাত দেন সেগুলো খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ নয়।এ কারণে তারা বিয়ে বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়। আপনি যদি এখনই বিয়ে করতে না চান, তাহলে অন্তত আইডিভা ওয়েবসাইটে দেওয়া এই অজুহাতগুলো দেবেন না।

১. আমি আরো পড়তে চাই। গ্র্যাজুয়েশন শেষ হওয়ার পর নিশ্চয়ই আপনার এই অজুহাত কেউ মানতে চাইবে না। ২. আমি পড়ার জন্য দেশের বাইরে যেতে চাই। এখন বিয়ে নিয়ে ভাবছি না। মেয়েদের তাঁর বাবা-মা একা দেশের বাইরে পাঠাতে রাজি হন না। তাই এই অজুহাত না দেখানোই ভালো।

৩. আমি আমার ক্যারিয়ারের কথা ভাবছি। এখন বিয়ে করলে কোনোভাবেই প্রতিষ্ঠিত হতে পারব না। চাকরি করেও মানুষ সংসার করে। এমন অজুহাত দেখালে আপনি তো কোনোদিনও বিয়ে করতে পারবেন না। কারণ ক্যারিয়ারে শেষ বলতে কোনো কথা নেই। প্রতি মুহূর্তেই ভালো কিছু করার জন্য চেষ্টা করতে হয়। তাই এই অজুহাত দেখিয়ে কোনো লাভ নেই।

৪. বিয়ে আমার জন্য না। এই কথা বলে কখনোই বিয়ে বন্ধ করতে পারবেন না। তাই এমন কথা না বলাই ভালো। ৫. আগে আমি আমার ওজন কমিয়ে নিই, তারপর বিয়ের কথা ভাবব। এই উদ্ভট অজুহাতের কোনো মানে আছে বলুন? ৬. আমি রান্না করতে পারি না। আগে রান্না শিখব তারপর বিয়ে করব। বিয়ের পর অনেক কিছুই নতুন করে শিখতে হয়। তাই এতদিন যেহেতু রান্না শেখেননি।

এখন আর শেখার প্রয়োজন নেই। রান্না করতে করতে এমনিতেই শিখে যাবেন। এটা বাবা-মাও ভালো বোঝেন। তাই তাঁদের সামনে এমন অজুহাত দেখিয়ে কোনো লাভ নেই।

৭. আমার অনেক টাকা জমাতে হবে, তারপর বিয়ের কথা ভাবব। মেয়েদের এই কথা কেউই মেনে নেবে না। তাই এই অজুহাত দেখানোর কোনো প্রয়োজন নেই। ৮. আমি এখন আমার বাবা-মাকে ছেড়ে যেতে পারব না। মেয়েরা কোনোদিনও তার বাবা-মাকে ছেড়ে যেতে চায় না। তাই এখন আর পরে বলে কোনো কথা নেই।

৯. ভাইয়া তো এখনো বিয়ে করেনি। আগে সে বিয়ে করুক, তারপর করব। ছেলেরা একটু দেরিতে বিয়ে করে এটাই স্বাভাবিক। তাই ভাইয়ের বিয়ের অজুহাত দেখিয়ে কোনো লাভ নেই। ১০. আম্মু তোমার বিয়েও তো ২৮ বছর বয়সে হয়েছে। আমাকে এত তাড়াতাড়ি বিয়ে দিতে চাচ্ছো কেন? মায়ের সঙ্গে নিজের তুলনা করে কোনো লাভ নেই। ভালো প্রস্তাব পেলে মা মেয়ের বিয়ে দিতে কখনোই দেরি করতে চান না।

গ’র্ভাব’স্থায় কত মাস পর্যন্ত স’হবাস করা উচিত? জেনে রাখুন তথ্যটি, কাজে লাগবেই গ’র্ভধারণ করার আগে পর্যন্ত সকল দম্পতিই স’হবাস করে। কিন্তু অনেকের মনেই এই প্রশ্নটা ঘুরপাক খায় যে, গ’র্ভধারণ হলে কি স’হবাস করা উচিত না উচিত না? অনেকেই মনে করেন গ’র্ভধারণ হয়ে গেলে আর স’হবাস করা উচিত নয় আবার অনেক কাপল মনে করে গ’র্ভধারণেও স’হবাস করা যায়, ভয়ের কিছু নেই!এই নিয়ে অনেকের মনেই অনেক কনফিউশন থাকে।

আজ আমরা এই প্র,তিবেদনে জানবো যে গ’র্ভাবস্থায় আদৌ সহ'বাস করা যায় কিনা? আর এই বিষয়ে ডাক্তাররা কি বলেন। আসুন দেখে নিই।
বেশিরভাগ মেয়েদের মনেই এই প্রশ্নটা থাকে যে, গর্ভাবস্থায় সহ'বাস করা চলে কি না, বা গ,র্ভাবস্থায় স,হবাস করলে আগত শিশুর কোন
ক্ষতি হয় কি না? এই বিষয়ে ডা,ক্তাররা বলছেন, গ,র্ভাবস্থায় স,হবাস করা নিরাপদ তবে সেটি প্র,সব বেদনা শুরু হওয়ার আগে পর্যন্ত,

আরেই ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যে, শিশুটির উপর যেন কোন ভাবে চাপ না পড়ে। অর্থাৎ পেটের উপর চাপ দিয়ে কোনভাবেই যৌ'ন
মি'ল'ন করা যাবে না।এছাড়া অন্য যে কোন ভাবেই স,হবাস করা যেতে পারে, বেশ কিছুদিন পর্যন্ত। কিছু নিয়ম কানুন অনুসরণ করলে
কোনো প্রকার বিপত্তির স,ম্ভাবনা থাকে না।স,হবাসের সময় স্বাভাবিক নড়াচড়া গর্ভে থাকা শিশুর কোন ক্ষতি করে না।

Check Also

বেশিক্ষন বীর্য ধরে রাখবেন কি করে,জেনে নিন কিছু টিপস

ছেলের যদি করার সময় ১০মিনিটের মাথায় বী'র্যপাত হয়, সেটি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক । একে দ্রুত বী'র্যপাত …