Home / এক্সক্লুসিভ / পুরুষ কণ্ঠ শুনলেই ভয়ে থাকেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এক গ্রামের নারীরা

পুরুষ কণ্ঠ শুনলেই ভয়ে থাকেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এক গ্রামের নারীরা

চারপাশ নীরব নিস্ত’ব্ধ। ফাঁকে ফাঁকে কয়েকজন নারীর জটলা। পুরুষ কণ্ঠের শব্দ শুনতেই ভী’ত স’ন্ত্র’স্ত হয়ে উঠেন তারা। এই বুঝি এলোরে। এই রকমই উৎক’ন্ঠা আর আত’ঙ্ক নিয়ে রাত-দিন কা’টছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজে’লার চরচারতলা গ্রামের পুরুষশূন্য লতিফ গোষ্ঠী ও খন্দকার গোষ্ঠীর শত শত নারীর। একটি ‘খু’ন’ পরবর্তী স”হিং’স’তা ঘিরে তাদের মধ্যে এই আত’ঙ্ক। কখনও বাড়িতে হা’ম’লা, ভা’ঙ’চুর, লু’টপা’ট আবার কখনও নারীদের ‘শ্লী’লতা’হা’নি। সব মিলিয়ে নাকাল জীবনযাপন করছেন তারা।

চলতি বছরের ২২ জানুয়ারিতে পূর্ব-বি’রো’ধের জের ধরে মুন্সি গোষ্ঠী ও লতিফ গোষ্ঠীর মধ্যে সং’ঘ’র্ষে মুন্সি গোষ্ঠীর উপজে’লার চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির ছোট ভাই জামাল মুন্সি নি’হ’ত হয়। এরপর থেকে মুন্সি গোষ্ঠীর অ’ব্যা’হত নৃ’শং’স’তায় এ ধরনের ঘটনা ঘটছে বলে প্রতিপক্ষ লতিফ গোষ্ঠীর লোকজনের অ’ভিযো’গ। সরেজমিন ওই গ্রামটি ঘুরে দেখা যায়, অনেক বাড়িতেই লু’টপা’টের ‘চি’হ্ন। লু’ট’পা’টের সময় আসবাবপত্রের পাশাপাশি জানালার গ্রিল পর্যন্ত খুলে নেওয়া হয়েছে। এখনও ছ’ড়িয়ে ছি’টিয়ে আছে ঘরের বিভিন্ন আসবাবপত্র।

কথা হয় লতিফ বাড়ির গৃহবধূ স্বপ্না বেগমের সঙ্গে। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, আজকে তিন মাস ধরে ভ’য়ে বাড়িতে যাচ্ছি না। আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে থাকতে হচ্ছে। চলামান ম’হামা’রি ক’রো’নার মধ্যে বাড়ি বাড়িতে পুরুষশূন্য। ঘরে কোনো খাবারও নেই। ঘরের আসবাপত্র সব লু’ট করে নিয়ে গেছে। সাংবাদিক দেখে এগিয়ে আসেন বৃ’দ্ধা হালেমা বেগম। চোখে মুখে আ’ত’ঙ্কে’র ছাপ। কা’ন্নারত কন্ঠেন তিনি বলেন, আমা’র ৩ প্রতিব’ন্ধীর ছে’লে। তাদের ঘরগুলো ভে’ঙে দিয়েছে। ঘরের সব জিনিস লু’ট করে নিয়ে গেছে। ভ’য়ে একাই বাড়িতে আছি। ম’হামা’রি মধ্যে মড়ার উপর খাঁ’ড়ার ঘা।

রিনা সুলতানা নামে এক নারী বাংলানিউজকে বলেন, আমা’র স্বামী নতুন দোতলা বিল্ডিং করেছে। ‘খু’নে’র ঘটনার পর থেকেই প্রতিদিনই ভা’ঙচু’র করছে। বিল্ডিংয়ের সব দামি দামি আসবাপত্র লু’ট করে নিয়ে গেছে। ভবনের বিভিন্ন অংশ গু’ড়ি’য়ে দেওয়া হয়েছে। লতিফ বাড়ির বা’সি’ন্দা মোবারক মিয়ার অ’ভিযো’গ, বর্তমান উপজে’লা চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির নেতৃত্বে এসব কা’ণ্ড হচ্ছে। তার কারণে শত শত মানুষ আ’জ বাড়ি ছাড়া। কোটি কোটি টাকার সম্পদ লু’ট করে নিয়ে যাচ্ছে তার লোকজন। তার ভ’য়ে কেউ কথা বলছে না। প্রায় শতাধিক বাড়িঘর ভা’ঙচু’রের শি’কার হয়েছে। আম’রা চাই যারা অ’পরা’ধী তাদের আই’নের আওতায় এনে বিচার করা হোক। নি’রাপরা’ধ মানুষরা যাতে হ’য়রা’নি বা মা’ম’লা হা’ম’লার শি’কার না হয়।

লতিফবাড়ি ও খন্দকার বাড়ির লোকজন অ’ভিযো’গ করেন, এখন তাদের জমি থেকে ধানসহ নানা জাতের সবজিও নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এখন তারা চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সির বি’চার দাবি করেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আশুগঞ্জ উপজে’লা চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সী বাংলানিউজকে বলেন, আমা’র ভাইয়ের ‘খু’নি’দে’র আ’ড়া’ল করতেই আ’সা’মিপ’ক্ষ এসব মিথ্যা নাট’ক সা’জাচ্ছে। নি’রাপরা’ধ মানুষের বাড়িতে হা’ম’লা ও ভা’ঙ’চুরে’র বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমন কোনো বিষয় আমা’র জানা নেই। জে’লা পু’লিশ সুপার (এসপি) মো. আনিসুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, ‘খু’নে’র ঘটনাটি যেমন অ’পরা’ধ। তেমনি লু’টপা’টে’র ঘটনায়ও জ’ড়ি’তরা অ’প’রা’ধী। সবাইকে আইনের আ’ত্ত’তায় আনা হবে।

Check Also

স্ত্রীকে সারা রাত তৃপ্তি দিন ১ টুকরো মুখে দিয়ে

সুস্থ দে’হ ও সুন্দর মন পাওয়ার আকাঙ্খা সবারই থাকে। আজীবন তারুণ্য ধরে রাখতে এবং যৌ’বনের …