Home / সারাদেশ / গৃহবধূর জরায়ু কেটে চিকিৎসক বললেন ‘একটু ভুল হতেই পারে’

গৃহবধূর জরায়ু কেটে চিকিৎসক বললেন ‘একটু ভুল হতেই পারে’

বাগেরহাটের শরণখোলায় ২৫ বছর বয়সী এক গৃহবধূর জরায়ু কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে ডা. মো. আরিফুল ইসলাম রাকিবের বিরুদ্ধে। তবে অভিযুক্ত চিকিৎসক বললেন, অপারেশন করতে গেলে ‘একটু ভুল হতেই পারে।

ওই গৃহবধূর নাম হালিমা বেগম। তিনি উপজেলার খোন্তাকাটা এলাকার মো. বেল্লাল ব্যাপারীর স্ত্রী। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। অভিযুক্ত রাকিব শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক।

ভুক্তভোগী হালিমার স্বজনরা জানান, ২৮ জুন হালিমাকে রায়েন্দা বাজারের নিউ-সুন্দরবন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। তাকে সিজার করাতে হবে বলে জানান একই ক্লিনিকের চিকিৎসক ডা. মো. আরিফুল ইসলাম রাকিব। এরপর ওই রাতেই হালিমাকে সিজার করেন তিনি। কিন্তু অপারেশন থিয়েটারে নিজের অবহেলার কারণে তার জরায়ু কেটে ফেলেন।

হালিমা বলেন, জরায়ু কেটে ফেলার কথা ডা. রাকিব প্রথমে আমাদের বলেননি। অপারেশন হওয়ার দু-তিনদিন পরেও রক্ত বন্ধ না হওয়ায় নার্সের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারি। জরায়ু কেটে ফেলায় এ পর্যন্ত আমাকে চার-পাঁচ ব্যাগ রক্ত দিতে হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ডা. রাকিবের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বললে তিনি বলেন- ‘জরায়ু আগে থেকেই ফাটা ছিল। অথচ আলট্রাসনোগ্রাফিতে এমন কিছুই পাওয়া যায়নি। চিকিৎসকের ভুলে আমার জীবন ধ্বংসের দিকে বলে অভিযোগ হালিমার।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডা. রাকিবের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ নুতন নয়। তিনি ডাক্তারি পাস করে সর্বপ্রথম নিজ এলাকার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগ দেন। এলাকার প্রভাব খাটিয়ে ক্লিনিকপ্রেমী হয়ে ওঠেন। সার্জারিতে অভিজ্ঞ না থাকলেও উপজেলার বিভিন্ন ক্লিনিকে নিয়মিত সার্জারি করেন। এছাড়া হাসপাতালে সময় না দিয়ে ক্লিনিকে গিয়ে রোগী দেখেন।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ডা. মো. আরিফুল ইসলাম রাকিব বলেন, চিকিৎসা দিতে গেলে অনেক সময় ভুল হয়। গৃহবধূ হালিমার জরায়ু আগে থেকেই ফাটা ছিল। এ জন্যই কেটে ফেলা হয়েছে। এ নিয়ে ভয়ের কিছু নেই।

Check Also

স্ত্রীর অনুরোধে লাইফ সাপোর্টে থাকা স্বামীর থেকে সংগ্রহ করা হল শুক্রাণু

করোনা আক্রান্ত স্বামী হাসপাতালে ভর্তি। রয়েছেন লাইফ সাপোর্টে। কিন্তু স্ত্রী চান সন্তান ধারণ করতে। সেই …