Home / সারাদেশ / একে একে বের করা হচ্ছে পোড়া লাশ

একে একে বের করা হচ্ছে পোড়া লাশ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কর্ণগোপ এলাকায় সেজান ফুড ফ্যাক্টরি থেকে একে একে বের করা হচ্ছে সারি সারি পোড়া লা'শ। স্বজনদের আহাজারি আর লা'শের গন্ধে পাল্টে গেছে পুরো রূপগঞ্জের দৃশ্যপট।

শুক্রবার বেলা ২টা পর্যন্ত ৩৯ জনের লা'শ বের করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। বাকি লা'শ উদ্ধারে চেষ্টা চালাচ্ছেন তারা। সেজান ফুড ফ্যাক্টরিতে লাগা আ'গুনে এখন পর্যন্ত অন্তত ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন।

এর আগে, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এতে ডেমরা, কাঞ্চনসহ ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট আ'গুন নেভানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আ'গুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

আ'গুন লাগার পর অনেকেই ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে বাঁচার চেষ্টা করে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। এর মধ্যে অনেকেই স্থানীয় হাসপাতালের পাশাপাশি ঢাকা মেডিকেলসহ রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল আরেফীন বলেন, আ'গুন প্রায় নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছিল ভোরের দিকে, সকালে আবারো বেড়ে যায়। আমরা কাজ করছি।

শ্রমিক ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কর্ণগোপ এলাকায় সেজান জুস কারখানায় প্রায় সাত হাজার শ্রমিক কাজ করেন। সাততলা ভবনে থাকা কারখানাটির নিচ তলার একটি ফ্লোরে কার্টন থেকে হঠাৎ আ'গুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তেই পুরো ভবনে আ'গুন ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় কালো ধোঁয়ায় কারখানাটি অন্ধকার হয়ে যায়।

একপর্যায়ে ছোটাছুটি শুরু করেন শ্রমিকরা। কেউ কেউ ভবনের ছাদে অবস্থান নেন। আবার কেউ কেউ ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়তে শুরু করেন। এ সময় ঘটনাস্থলেই স্বপ্না ও মিনা নামে দুই নারী নিহত হন। পরে মোরসালিন লাফ দিয়ে আহত হন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

Check Also

গণপরিবহন চালুর বিষয়ে আসছে নতুন সিদ্ধান্ত

বিদ্যমান করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে চলমান বিধিনিষেধ আরো বাড়ানো হতে পারে। …