Home / সারাদেশ / অতিথিরা খেলেন পোলাও-মাংস, চিৎকার দিয়েই প্রেমিক খেলেন বিষ

অতিথিরা খেলেন পোলাও-মাংস, চিৎকার দিয়েই প্রেমিক খেলেন বিষ

প্রেমিকার বিয়েতে সময় মতোই এলো বরযাত্রী। খাবার বণ্টনও শেষ। পোলাও-মাংস ছাড়াও নানা পদ সামনে রেখে খাচ্ছিলেন অতিথিরা। এমন সময় হাজির প্রেমিক। ঠিক বিয়ের আসরে গিয়ে সবার সামনেই ‘এই জীবন শেষ করে দিব বলেই’ মুখে ঢেলে দেন বিষ। শুরু হয় তার গোঙানি।

আর সেই শব্দ পেয়ে তড়িঘড়ি তাকে পাশের ফুফাতো বোনের বাড়ির সামনে ফেলে রেখে আসেন কনেপক্ষের লোকজন। ঘটনাটি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের। রোববার বিকেলে উপজেলার জাটিয়া ইউনিয়নের মালিহাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রেমিক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

২৩ বছর বয়সী প্রেমিকের নাম মো. আহসান। তিনি ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার বড়জোরা ইউনিয়নের বড়জোরা গ্রামের হাসিম উদ্দিনের ছেলে। আর প্রেমিকা শাহনাজ পারভীন স্বর্ণা জাটিয়া ইউনিয়নের মালিহাটি গ্রামের আব্দুল আহাদের মেয়ে।

জানা গেছে, স্বর্ণার বাড়ির পাশেই আহসানের ফুফাতো বোনের বাড়ি। সেই সুবাদে তার সঙ্গে আহসানের পরিচয় হয়। কিছুদিন পর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে স্বর্ণার পরিবারকে বিয়ের প্রস্তাবও দেন আহসানের পরিবার। কিন্তু স্বর্ণার পরিবার রাজি হয়নি। এরপরও দুজনের প্রেমের সম্পর্কে ফাটল ধরেনি। এর মধ্যে হঠাৎ অন্যত্র বিয়ের দিন-তারিখ ধার্য হয় স্বর্ণার।

রোববার ছিল বিয়ের আয়োজন। এ খবর পেয়ে অতিথির বেশে বিয়ের আসরে ঢোকেন আহসান। পরে সবার সঙ্গেই আপ্যায়নে শরিক হন। একপর্যায়ে প্যান্ডেলের ভেতরে অতিথিদের খাওয়া শুরু হলে পাশেই কনের কক্ষের পাশে গিয়ে ‘আমি আর বাঁচতে চাই না চিৎকার দিয়েই’ মুখে বিষ ঢেলে দেন। এমন সময় বাড়ির লোকজন কোনো উপায় না দেখে আহসানকে ধরাধরি করে পাশেই ফুফাতো বোন নাছিমার বাড়ির সামনে রেখে আসেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও আহত আহসানের পরিবারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি বলে জানান ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল কাদের মিয়া।

Check Also

সাইদুরের মাথাটার কিছুই ছিল না, হেলমেটটা ছিল অক্ষত

স্ত্রী রুনু, সঙ্গে দেড় বছরের সন্তান রেহান ও ৯ বছরের রোহান—সবাইকে বেশ অনিশ্চয়তার মুখে ফেলে …